চরফ্যাসনে আন্তজাতিক মাসিক স্বাস্থ্য পরিচর্যা দিবস ২০১৮ পালিত

0

“নেই কোন সীমানা” এই স্লোগানকে সামনে রেখে ভোলা জেলার চরফ্যাসনে মাসিক স্বাস্থ্য পরিচর্যা দিবস পালিত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ভার্কের সহযোগিতায় মাসিককালীন স্বাস্থ্য পরিচর্যা নিয়ে উপজেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় চরফ্যাশন উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা প্রধান অতিথী হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া বিভিন্ন সরকারী ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি, সাংবাদিক, অভিভাবক, কিশোর-কিশোরীরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় বক্তরা বলেন, আজ আর্ন্তজাতিক মাসিক স্বাস্থ্য দিবস উপলক্ষে কিশোরীদের দৈহিক ও মানসিক পরিবর্তনের সাথে সাথে মাসিক বা ঋতুস্্রাব হওয়া, মাসিকের সময় পরিচর্যা, পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ ইত্যাদি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এ সম্পর্কে সকলের সঠিক ধারনা থাকতে হবে। একজন কিশোরীর মাসিককালীন সময়ে পুষ্টিকর খাবার খাওয়া ও পরিস্কার –পরিছন্ন থাকা জরুরী। যাতে করে ভবিষ্যতে মা হওয়ার সময় কোন ধরনের বিপদের সম্মুখীন হতে না হয় তাকে।

এসময় চরফ্যাশন উপজেলার নির্বহী কর্মকর্তা জনাব, মো: মোনোয়ার হোসেন জানান, মাসিককালীন সময়ে গোপনীয়তা বজায় না রেখে সরাসরি সকলের সাথে পরামর্শ নিয়ে মাসিককালীন সময়ে পুষ্টিকর খাবার খাওয়া এবং পরিচর্যা করা একান্ত জরুরী। এছাড়াও অভিবাবকদের সচেতন হতে হবে। এতে কিশোরীরা জরায়ুর ক্যান্সার হওয়ার হাত থেকেও রক্ষা পেতে পারে। এবিষয়ে একজন অভিবাবকগণ জানান, মসিকের সময়ে তার সন্তানদের পুষ্টিকর খাবার দিয়ে থাকেন এবং সঠিক পরিচর্যার নিয়ম বলে দেন। কিশোরীরা জানান, মাসিকের সময় যথার্থভাবে পরিস্কার পরিছন্ন থাকা, পুষ্টিকর খাবার খাওয়া ইত্যাদি সম্পর্কে তারা এখন জানতে পেরেছে এবং মেনে চলে।

আজ নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস।
আজ ২৮ মে বিশ্ব নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য “কমাতে হলে মাতৃমৃত্যু হার, মিডওয়াইফ পাশে থাকা একান্ত দরকার।” ১৯৮৭ সাল থেকে নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস পালন শুরু হয় । এই দিবস পালনের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে- মা ও শিশুর মৃত্যুহার কমিয়ে উভয়ের জন্য একটি নিরাপদ ও সুন্দর জীবন গড়ে তোলা। একজন সুস্থ ও নিরাপদে থাকা মানেই কেবল একটি সুস্থ শিশুর জন্ম দিতে পারা। তাই দেশের ভবিষ্যৎ সুস্থ জাতি আশা করতে হলে মাকে অবশ্যই সুস্থ ও নিরাপদ রাখতে হবে। আর মায়ের নিরাপদ থাকা নির্ভর করে সব অধিকার রক্ষার মাধ্যমে। আর এই নিরাপদ মাতৃত্ব দিবস উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি তার বাণীতে বলেছেন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের লক্ষ্যে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে বাংলাদেশ আজ বিশ্বে রোল মডেল। মাতৃমৃত্যু ও নবজাতকের মৃত্যুহার কমানোর জন্য প্রয়োজন জনসচেতনতা, প্রসবপূর্ব , প্রসবকালীন, প্রসব পরবর্তী মান সম্মত সেবা দেওয়া উচিত। তাই প্রশিক্ষিত মিডওয়াইফ স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়নের পাশাপাশি বেসরকারি সংস্থ্যা, সুশীল সমাজ সর্ব স্তরের জনগনকে এগিয়ে আসতে হবে। প্রধান মন্ত্রীবলেন, জাতীয় উন্নয়নে মা ও শিশু স্বাস্থ্য সুরক্ষা অপরিহার্য। সরকার গর্ভবতী মা ও নবজাতকের মানসন্মত পরিচর্যা এবং রোগ প্রতিরোধে ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। নিরাপদ প্রসব নিশ্চিত এবং মাতৃমৃত্যু হ্রাসে মিডওয়াইফগন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। এজন্য সরকার মিডওয়াইফারি শিক্ষাও সার্ভিসকে গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করে আসছে।

এছাড়া রেডিও মেঘনা দিবস দুটি উপলক্ষে দিন-ব্যাপি নানা সচেতনতামূলক অনুষ্ঠান যেমন, আলোচনা, নাটিকা, ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান এবং তথ্যকণিকা প্রচার করে।

এই প্রতিবেদনটি তৈরী করেছেন সুরভী। এটি প্রচারিত হয়েছে ২৮ মে ২০১৮ রেডিও মেঘনার সন্ধ্যা ৭.০০ টার সংবাদে।

Share.

Leave A Reply