জন্ম নিয়ন্ত্রনের বিভিন্ন পদ্ধতি গ্রহণে উৎসাহী হচ্ছেন চরফ্যাসনের প্রান্তিক এলাকার গৃহিনীরা

0

জন্ম নিয়ন্ত্রনের বিভিন্ন পদ্ধতি গ্রহণে উৎসাহী হচ্ছেন চরফ্যাসনের প্রান্তিক এলাকার গৃহিনীরা

সুখী সংসার গড়ে তুলতে এবং পরিবার ছোট রাখার জন্য উপকূলীয় এলকার প্রান্তিক পর্যায়ের নারীরা জন্ম নিয়ন্ত্রণের বিভিন্ন পদ্ধিতি গ্রহণে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। উত্তর মাদ্রাজের নাজমা বেগমের ৪ সন্তান হওয়ার পর এক স্বাস্থ্য পরিদর্শিকার পরামর্শে দশ বছর মেয়াদী আইইউডি বা কাপারটি পদ্ধতি গ্রহণ করেন। আর এতে করে ৭ বছর থেকে গর্ভধারণ থেকে বিরত আছেন বলে আমাদের জানান নাজমা বেগম। শুধু নাজমা বেগম নয় এই এলাকার ইয়াসমিন বেগমসহ আরো কয়েক জনের সাথে কথা হলে তারাও জন্ম নিয়ন্ত্রণের বিভিন্ন পদ্ধতি গ্রহণ করছেন বলে আমাদের জানান।
এ বিষয়ে চরফ্যাসন উপজেলার পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা মোঃ কামাল হোসেন বলেন, প্রথমে জন্ম নিয়ন্ত্রণ বিভিন্ন পদ্ধতি (ইনজেকশন, ইমপ্ল্যান্ট, আইইউডি, ভ্যাসেকটমি বা এনএসভি, টিউবেকটমি) সর্ম্পকে দম্পতিদের পরামর্শ দেওয়া হয়। পরে দম্পতিরা তাদের পছন্দমতো পদ্ধতি গ্রহন করে থাকেন। চরফ্যাসন উপজেলায় দীর্ঘ মেয়াদি পদ্ধতি গ্রহণকারীর সংখ্যা অনেকটাই কম। তবে দশ বছর মেয়াদী অস্থায়ী পদ্ধতি আইইউডি বা কপারটি গ্রহন করেছ।

প্রতিবেদনে আনিলা জাহান ও মনীষা মৌ। প্রচারিত হয়েছে ১৭ জুলাই (বুধবার) রেডিও মেঘনার সন্ধ্যার (৭টার) সংবাদে। শুধুমাত্র ৯৯.০ এফএম এ।

Share.

Leave A Reply