সেলাই মেশিন চালিয়ে লাভের মুখ দেখছেন আব্দুল্লাপুরের রুমা।

0

বর্তমানে দেশের বিভিন্ন জেলা উপজেলায় দেখা যায় নানান কাজের সাথে জড়িত রয়েছেন নারীরা। নিজের ঘরের কাজের পাশাপাশি আয় করার মতো করছেন অনেক ধরনের কুটির শিল্পের  কাজ, যার মাধ্যমে সংসার খরচের পাশাপাশি ছেলে মেয়েদের  লেখাপড়ার খরচও চালাতে সক্ষম হচ্ছেন। দেশের বিভিন্ন স্থানে যেমন কাজ করে সংসার চালাচ্ছেন নারীরা, তেমনি চরফ্যাশন উপজেলাতেও  দেখা যায় স্বামীর কাজের পাশাপাশি  নিজেরাও বাড়তি আয় করছেন। এতে  খুব ভালো ভাবে  দিন কাটাচ্ছেন তারা। সরেজমিনে গিয়ে এমন চিত্র দেখা যায়। এদিকে  আব্দুল্লাপুর ২নং ওর্য়াডের ৩০ বছর বয়সি রুমা জানান, প্রথমে  আড়াই থেকে তিন হাজার টাকা খরচ করে পাশ্ববর্তী  একজনের কাছে সেলাইয়ের কাজ শিখেন । পরে তার স্বামীর পরামর্শে সেলাই মেশিন কিনে চার থেকে পাঁচ হাজার টাকা ব্যয় করেন তিনি। তবে এখন অনেক টাকা লাভ করছেন তিনি। তিনি আরো জানান, সেলাই মেশিনের কাজ করে  ২০ হাজার টাকার মতো আয় করেছেন। আগে তার সংসারে কিছুই ছিলো না, কিন্তু বর্তমানে তার সংসার  অনেকটাই ভালো পর্যায়ে আছেন। তিনি সেলাই মেশিনে শুধু ছেলে মেয়েদের যাবতীয়  পোশাকই সেলাই করেন না, প্রশিক্ষক হিসেবে অনেককে এই কাজ শিখিয়েও অনেক অর্থ উপার্জন করেছেন। এতে তিনি অনেকটাই লাভবান। এছাড়া ভবিষ্যতে এই সেলাই মেশিনের কাজ আরো বাড়াবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন তিনি।

এই প্রতিবেদনটি তৈরী করেছেন সুরভী। এটি প্রচারিত হয়েছে ২৬ আগষ্ট রেডিও মেঘনার সন্ধ্যার সংবাদে। রেডিও মেঘনার সন্ধ্যার সংবাদ আপনারা শুনতে পান প্রতিদিন সন্ধ্যা ৭.০০ টা থেকে ৭.১০ মিনিট পর্যন্ত।

Share.

Leave A Reply